Wednesday, August 10
Shadow

বেহেশতে তোমাদের দেওয়া হবে আদা মিশ্রিত পানীয়।”

বেহেশতে তোমাদের দেওয়া হবে আদা মিশ্রিত পানীয়।”

আলোচনা ও আমল
"বেহেশতে তোমাদের দেওয়া হবে আদা মিশ্রিত পানীয়।” আল কোরান, সুরা দাহর “And they shall drink therein a cup tempared with Zan Jabil ( Ginger) আদার মতো নগ্ণ্য কন্দমুল যা বাংলাদেশের ঝোপঝাড়ে জন্মে,  তার স্থান হয়েছে বেহেশতের পানীয়তে? অদ্ভুত ব্যাপার না? বিপুল  উৎসাহে কোন কাজে লেগে পড়া কে আমরা বলি আদাজল খেয়ে লাগা। এই বাগধারা টা কেন এসেছে? আদা পানি খেয়ে দেখেছি অতি অখাদ্য। আমেরিকায় Ginjer Beer নামে এক ধরনের পানীয় আছে। আদা চিনি ক্রিম অব টারটার  পানিতে মিশিয়ে ইষ্ট দিয়ে ফার্মেন্টড করে এই পানীয় তৈরি। সেটাও আখাদ্য। ( অখাদ্য না বলে অপেয় বলা উচিত। তবে অখাদ্য শুনতে ভালো লাগে) আধার রসায়ন হচ্ছে আদায় আছে শতকরা 2 ভাগ “Essential oil” যার প্রধান অংশ Gingiberene আধার ঝাঁজালো ব্যাপারটা আসে Zingerene থেকে কিছু লবণ থাকে (Potassium Oxalate) আর থাকে Terpenoids ( Comphen...
দুনিয়াতে আমরা এসেছি পরিক্ষা দিতে এটা হচ্ছে জীবনের সবচেয়ে বড় বাস্তবতা

দুনিয়াতে আমরা এসেছি পরিক্ষা দিতে এটা হচ্ছে জীবনের সবচেয়ে বড় বাস্তবতা

আলোচনা ও আমল
আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ। 🌹-----দুনিয়াতে আমরা এসেছি পরিক্ষা দিতে এটা হচ্ছে জীবনের সবচেয়ে বড় বাস্তবতা,,,,,,🌹 -হিন্দি সিরিয়াল,,, মিউজিক,, ভিডিও গেম,, রং বেরংঙের পানীয়,, হাজারো বিনোদন সব সময় চেষ্টা করে বাস্তবতা ভুলিয়ে দিতে,,,আমরা নিজেদেরকে প্রতিদিন নানা ধরনের বিনোধনে মধ্যে অবদ্ধ করে রাখে জীবনের কষ্ট ভুলে থাকার চেষ্টা করি,,, আমরা যতই বিনোদনে গা ভাসাই, ততই বিনোদনের প্রতি অসক্ত হয়ে যায়,,,,, যতক্ষন বিনোদনে ডুবে থাকি,,,, ততক্ষন জীবনটা আনন্দময় মনে হয়,,,, তারপর বিনোদন শেষ হয়ে গেলেই আবসাদ,,,বিরক্তি,, এক ঘেয়ামি ঘিরে ধরে,, ধীরে ধীরে একসময় জীবনের প্রতি ক্ষুব্ধ হয়ে উঠি,," কেন আমার নাই??কিন্তু ওর আছে!!!" কেন আমার বেলাই এই রকম হয়??? অন্যের কেন এরকম হয়না!!! এই সব অসুস্থ পশ্ন করে আমরা আমাদের মানসিক অশান্তির জ্বালানী যোগায়,,,,, অথচ আমরা ভুলে যায় যে এই দুনিয়াটা শুধু পরিক্ষার হল,,,...
ইসলামিক প্রশ্নঃ পূর্বের পাপ মনে পড়লে কি করবেন?

ইসলামিক প্রশ্নঃ পূর্বের পাপ মনে পড়লে কি করবেন?

প্রশ্ন ও উত্তর
প্রশ্ন : পূর্বের কিছু পাপের জন্য তওবা করেছি। এখন সেসব মনে পড়লে আবারও কি তওবা করতে হবে, নাকি ইস্তেগফার করতে হবে? উত্তর : পূর্ববর্তী কোনো পাপের কথা মনে পড়লে বা অনুতপ্ত হলেই এটি একটি তওবা। এক হাদিস অনুযায়ী, তওবা হলো মূলত অন্তরে সত্যিকার অর্থে অনুতপ্ত হওয়া। কোনো ব্যক্তি অন্তরে যদি আগের পাপের কথা ভেবে ব্যথিত হন, তাহলে তিনি বেশি বেশি ইস্তেগফার করবেন। এ সময় মন নরম থাকে। এ অবস্থায় আল্লাহর কাছে ইস্তেগফার করবেন, ক্ষমা চাইবেন এবং দোয়া করবেন। এ সময়ের ইস্তেগফার কবুল হয়। যদি এসব করলে আপনার তওবা কবুল হবে। এ জন্য অনুশোচনা এলেই আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইবেন। বেশি বেশি ইস্তেগফার করবেন। ...
প্রশ্নঃ যাকাত কি রমজান মাসেই দিতে হবে?

প্রশ্নঃ যাকাত কি রমজান মাসেই দিতে হবে?

প্রশ্ন ও উত্তর
প্রশ্ন : জাকাতের কি কোনো নির্দিষ্ট মাস আছে, নাকি যে কোনো মাসে জাকাত আদায় করা যায়? উত্তর : জাকাত একটি চলমান প্রক্রিয়া। ধরেন, আপনার একাউন্টে যে টাকা রেখেছেন, আজকে যদি তার এক বছর পূর্ণ হয়ে যায়, তাহলে আজকেই জাকাত দেবেন। সম্পদ হাতে পাওয়ার পর এক বছর যখন পূর্ণ হবে, তখনই আপনাকে জাকাতের অঙ্ক কসতে হবে, সেটা যে মাসেই পড়ুক, যে সপ্তাহেই পড়ুক, যে দিনেই পড়ুক। কিন্তু আমাদের সমাজে একটা প্রচলন হয়ে গেছে, যাঁরা জাকাত দেন, তাঁরা রমজান মাসেই জাকাত দেন,রমজানে বেশি ফজিলত লাভের আশায়। কিন্তু এ বিষয়ে ইসলামি চিন্তাবীদরা বলেছেন,জাকাত যদি রমজানের আগের মাস, অর্থাৎ শাবান মাসে ফরজ হয়, তাহলে রমজানের ফজিলত পাওয়ার আশায় সে জাকাত ধরে রাখা যাবেনা। কারন এটা গরিবের অধিকার, গরিবের হক। যত দ্রুত সম্ভব, নিজ দায়িত্বে তাঁদের কাছে এই টাকা পৌছে দিতে হবে। আর যদি রমজানের পরের মাসে, অর্থাৎ শাওয়াল মাসে জাকাত ফরজ হয়, সেক্ষেত্...
কীভাবে দু’আ করলে আল্লাহ কবুল করবেন? (দু’আ কবুলের শর্তাবলী ও আদবসমূহ)

কীভাবে দু’আ করলে আল্লাহ কবুল করবেন? (দু’আ কবুলের শর্তাবলী ও আদবসমূহ)

আলোচনা ও আমল
কীভাবে দু'আ করলে আল্লাহ কবুল করবেন?(দু'আ কবুলের শর্তাবলী ও আদবসমূহ)(১) দৃঢ় বিশ্বাস রেখে দু'আ করা :♦ রাসূল সা. বলেন, "হে মানুষেরা! তোমরা যখন আল্লাহর কাছে চাইবে তখন কবুল হওয়ার দৃঢ় বিশ্বাস নিয়ে চাইবে; কারণ কোনো বান্দা অমনোযোগী অন্তরে দু'আ করলে আল্লাহ তার দু'আ কবুল করেন না।" (সহিহুত তারগিব ২/১৩৩, হাসান)(২) প্রথমে নিজের জন্য দু'আ করা :♦ আবু আইয়ূব আনসারি রা. বলেন, "নবি সা. যখন দু'আ করতেন তখন নিজেকে দিয়ে শুরু করতেন।" (আহমাদ ৫/১২১, মাজমাউয যাওয়াইদ ১০/১৫২, হাসান)(৩) অনুপস্থিতের জন্য দু'আ করলে কবুল হয় :♦ রাসূল সা. বলেন, "কোনো মুসলিম যখন তার কোনো অনুপস্থিত ভাইয়ের জন্য দু'আ করে তখন আল্লাহ তার দু'আ কবুল করেন।" (মুসলিম ৪/২০৯৪)(৪) আল্লাহর ইসমে আযম (মহিমান্বিত নাম) দিয়ে দু'আ করা :♦ এক ব্যক্তি সালাতের বৈঠকে আল্লাহর ইসমে আযম দিয়ে দু'আ করছিলেন। তখন রাসূল সা. বলেন, "নিশ্চয়ই সে আল্লাহর কাছে তাঁর ইসমে আযম ধরে ...
নামাজের ১৫ বৈজ্ঞানিক উপকারিতা।

নামাজের ১৫ বৈজ্ঞানিক উপকারিতা।

ইসলাম ও বিজ্ঞান
ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভ। এর মধ্যে একটি হলো নামাজ। প্রতিদিন ৫ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করা প্রত্যেক মুসলমানের জন্য আবশ্যক। আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য অনেকেই অতিরিক্ত নামাজও আদায় করেন। এছাড়া শবে বরাত এবং লাইলাতুল কদরে সারা রাত নামাজের মাধ্যমে ইবাদত-বন্দেগিতে কাটিয়ে থাকেন। উদ্দেশ্য একটাই পূণ্য অর্জন। কিন্তু আপনার অজান্তেই এই নামাজ স্বাস্থ্যের কি কি উপকারে আসছে তা জানেন কি?  চিকিৎসা বিজ্ঞান বলছে, নামাজ পড়ার মাধ্যমে শরীরের বেশকিছু অঙ্গপ্রত্যঙ্গের নাড়াচাড়া হয় যা এক প্রকার ব্যায়াম। এই ব্যায়াম স্বাস্থ্যের বিভিন্ন অঙ্গের জন্য অনেক উপকারি।  জেনে নিন নামাজ পড়ার ১৫টি স্বাস্থ্যগত উপকারিতা- ১. নামাজে রুকু থেকে সেজদায় যাওয়ার সময় পেটে চাপ পড়ে তা থেকে পেটের ভিতর দূষিত বায়ু গুলো বের হয়ে আবার নতুন বাতাস শরীরে প্রবেশ করে যার ফলে ফুসফুস ও বায়ুথলি ভালো থাকে। ২. নামাজের সময় বার...
ধৈর্য ইসলামের সৌন্দর্য

ধৈর্য ইসলামের সৌন্দর্য

আলোচনা ও আমল
ইসলাম মানবতার ধর্ম। মানব চরিত্রের উৎকর্ষ সাধনই এর মূল লক্ষ্য। এ মহান লক্ষ্যে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আদি যুগ থেকে নবী-রাসুল পাঠিয়েছেন। সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবী মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে পাঠিয়েছেন মানবতার উৎকর্ষের পূর্ণতা প্রদানের জন্য। মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) বলেন, ‘বুইছতু লিউতাম্মিমা মাকারিমাল আখলাক’, অর্থাৎ আমাকে পাঠানো হয়েছে সুন্দর চরিত্রের পূর্ণতা প্রদানের জন্য। (মুসলিম ও তিরমিজি)। এ প্রসঙ্গে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলা কোরআন কারিমে বলেন, ‘ওয়া ইন্নাকা লাআলা খুলুকিন আজিম’, অর্থাৎ হে মুহাম্মদ (সা.), নিশ্চয় তুমি মহান চরিত্রে অধিষ্ঠিত। (পারা: ২৯, সূরা-৬৮ কলম, আয়াত: ৪)। মানব চরিত্রের উত্তম গুণাবলির অন্যতম হলো ধৈর্য ও সহিষ্ণুতা। পবিত্র কোরআনে স্থানে স্থানে মহান আল্লাহ নিজেকে ধৈর্যশীল ও পরম সহিষ্ণু হিসেবে পরিচয় প্রদান করেছেন। ধৈর্যের আরবি হলো ...
প্রশ্ন: ফজর নামাজের সময় কতক্ষণ? এবং ফজরের নামাজ কাজা হলে সেটা কখন পড়ব?

প্রশ্ন: ফজর নামাজের সময় কতক্ষণ? এবং ফজরের নামাজ কাজা হলে সেটা কখন পড়ব?

প্রশ্ন ও উত্তর
ফজর নামাজের নিয়ম ফজরের নামাজ দুই রাকাত সুন্নত ও দুই রাকাত ফরজ নামাজ নিয়ে গঠিত। ফরজ অংশ ইমামের নেতৃত্বে জামাতের সাথে আদায় করা হয়। সুবহে সাদিক থেকে সূর্যোদয়ের আগ পর্যন্ত ফজরের নামাজের সময়। ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজের পর ফরজ নামাজ পরতে হয়। ফজরের সময় শুরু হওয়া থেকে ইসলামের অন্যতম একটি স্তম্ভ রোজার সময়ও শুরু হয়। প্রশ্ন : ফজরের নামাজ কাজা হলে সেটা কখন পড়ব? উত্তর : ফজরের নামাজ যদি সময়মতো না পড়তে পারেন তাহলে তো সূর্য উদয়ের পরেই আদায় করবেন। তবে সূর্য যখন উঠতেছে, মানে ওঠার সময়টায় নামাজ পড়া নিষেধ। এই জন্য সূর্য ওঠার কমপক্ষে ১০ মিনিট পর কাজা সালাত আদায় করবেন। সূর্য ওঠার পর থেকে যোহরের আগ পর্যন্ত যেকোনো সময় ফজরের সালাতের কাজা পড়ে নিতে পারেন। তবে সূর্য ওঠার পর যত দ্রুত পারেন পড়ে নিবেন। যত দ্রুত নামাজ পড়া যায় ততই ভালো। ...
বিয়ে দেওয়ার আগে মেয়েদের মতামত নিতে হবে কি?

বিয়ে দেওয়ার আগে মেয়েদের মতামত নিতে হবে কি?

প্রশ্ন ও উত্তর
বিয়ে একটি স্থায়ী সম্পর্ক। সমাজে একটি বিষয় পরিলক্ষিত হয় যে, নারীর কোনো সম্মতি বা মতামত না নিয়েই অপরিচিত ছেলের কাছে বিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এভাবে নারীর মতামত বা সম্মতি ছাড়া বিয়ে দেওয়ার কি বৈধ? বিয়ের আগে নারীর মতামত সম্পর্কে ইসলামের বিধানই বা কী? উত্তরঃ ‘হ্যাঁ’ বিয়ের আগে নারীর মতামত নেয়া জরুরি। এ সম্পর্কে ইসলামের সুস্পষ্ট দিকনির্দেশনা রয়েছে। যে নারীকে বিয়ে দেওয়া হবে সে কুমারি হোক কিংবা তালাকপ্রাপ্তা বা বিধবা হোক সবার ক্ষেত্রেই বিয়ে দেয়ার আগে মতামত নেওয়া বা অনুমিত গ্রহণ করা আবশ্যক। যিনি বিয়ের অভিভাবক হবেন তার জন্য অবশ্যই নারীর কাছ থেকে বিয়ের আগে অনুমতি বা মতামত গ্রহণ করা জরুরি। কোনো নারীর মতামতের তোয়াক্কা না করে ইচ্ছার বিরুদ্ধে পাত্রস্থ করা বা বিয়ে দেওয়া বৈধ নয়। আবার যদি কোনো নারীর অনুমতি ও সম্মতি ছাড়াও তার বিয়ে দেওয়া হয় তবে সে নারী চাইলে তার বিয়ের আকদ বা চুক্...
আল্লাহর নিকট ফিরে আসার গল্প ও আল্লাহর প্রতি ভালোবাসা।

আল্লাহর নিকট ফিরে আসার গল্প ও আল্লাহর প্রতি ভালোবাসা।

ইসলাম ও বিজ্ঞান
আল্লাহর কাছে আসার গল্প । “আমি ইসলাম গ্রহণ করতে বাধ্য হয়েছি।" -ড্যানিয়েলে লোডুকা । আমি কখনোই আল্লাহকে খোঁজার গরজ অনুভব করিনি। যখন কিছুই করার থাকত না, তখন কোনো পুরনো বই বা ভবন দেখে সময় কাটাতাম। কখনো কল্পনাও করিনি আমি মুসলমান হব। আমি খ্রিস্টানও হতে চাইনি।যেকোনো প্রাতিষ্ঠানিক ধর্মের প্রতিই আমার তীব্র বিতৃষ্ণা ছিল। প্রাচীন কোনো গ্রন্থ আমার জীবনযাপনের পথ-নির্দেশ করবে, তা নিয়ে ভাবিইনি। এমনকি কেউ যদি আমাকে কয়েক কোটি ডলার দিয়েও কোনো ধর্ম গ্রহণ করতে বলত, আমি সরাসরি অস্বীকার করতাম। আমার প্রিয় লেখকদের অন্যতম ছিলেন বার্টান্ড রাসেল। তার মতে, ধর্ম হলো কুসংস্কারের চেয়ে একটু ভালো, সাধারণভাবে লোকজনের জন্য ক্ষতিকর, যদিও এর ইতিবাচক কিছু বিষয়ও আছে। তিনি বিশ্বাস করতেন, ধর্ম ও ধর্মীয় দৃষ্টিভঙ্গি জ্ঞানের পথ বন্ধ করে দেয়, ভীতি আর নির্ভরতা বাড়িয়ে দেয়। তাছাড়া...