ইসলামি শরীয়ত মোতাবেক মহিলাদের সাজসজ্জার বিধান।


প্রচলিত বিউটি পার্লারের শরঈঃ

সাজগোজ করা, পরিপাটি থাকা এটি মহিলাদের স্বভাবজাত বিষয়। ইসলাম মেয়েদের স্বভাবজাত এ সাজসজ্জার মানসিকতার বিরোধী নয়। তবে এক্ষেত্রে শরয়ী সীমা অতিক্রম করা জায়েজ নয়। এমন কোন কাজ করা উচিত নয়, যদ্ধারা আল্লাহ ও রাসূলের বিধান লঙ্ঘিত হয়।

সাজসজ্জার ক্ষেত্রে ইসলামের মূলনীতি হল, যে কাজ ইসলামে সম্পূর্ণ অবৈধ, সেকাজ কোনভাবেই কারো জন্যেই করা জায়েজ নয়। এমনকি স্বামীকে খুশি করার জন্যও করা জায়েজ নয়।

আল্লাহর নবী সাঃ স্পষ্ট ভাষায় ঘোষণা করেছেন,

لَا طَاعَةَ لِمَخْلُوقٍ فِي مَعْصِيَةِ اللَّهِ

আল্লাহ তাআলা অবাধ্য হয়ে কোন সৃষ্টির আনুগত্ব করা জায়েজ নয়। {মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-১০৯৫, সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং-১৭০৭}

আর সাজগোজের যেসব বিষয় জায়েজ, তা গায়রে মাহরাম পুরুষদের দেখানোর জন্য করলে জায়েজ নয়, এতে করে সাজগোজকারী গোনাহগার হবে। তবে স্বামীকে খুশি করার জন্য যদি সাজগোজ করে তাহলে এতে সওয়াব পাবে।

বর্তমানে প্রচলিত বিউটি পার্লারের অনেক কাজ জায়েজ হলেও অনেক নাজায়েজ কাজও রয়েছে। জায়েজ কাজগুলো যদি শরয়ী পর্দা রক্ষা করে করা হয়, তাহলে সে বিউটি পার্লার চালাতে শরয়ী কোন বাঁধা নেই।

তবে যদি গায়রে শরয়ী কাজ করে, তাহলে যে করল সেও গোনাহগার হবে, যার মাধ্যমে করলো সেও গোনাহগার হবে।

চুল কাটাঃ

মহিলাদের জন্য মাথার চুল যেকোন অংশ থেকেই হোক কাটা বা উপড়ানো কোনটিই জায়েজ নয়। কারণ এতে করে পুরুষের সাথে সাদৃশ্য হয়ে যায়। পুরুষের সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ কাজ করার ব্যাপারে হাদীসে কঠোর হুশিয়ারী উচ্চারিত হয়েছে।

عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُمَا قَالَ: «لَعَنَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ المُتَشَبِّهِينَ مِنَ الرِّجَالِ بِالنِّسَاءِ، وَالمُتَشَبِّهَاتِ مِنَ النِّسَاءِ بِالرِّجَالِ»

হযরত ইবনে আব্বাস রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ অভিশাপ করেছেন সেসব পুরুষের উপর যারা মহিলাদের সাদৃশ্য গ্রহণ করে, আর সেসব মহিলাদের উপর যারা পুরুষের সাদৃশ্য গ্রহণ করে। {সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫৮৮৫, ৫৫৪৬, সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-১৯০৪}

অন্যত্র বর্ণিত হয়েছে-

عَنْ عَلِيٍّ قَالَ: نَهَى رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَنْ تَحْلِقَ الْمَرْأَةُ رَأْسَهَا.

হযরত আলী রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ মহিলাদের চুল কামাতে নিষেধ করেছেন। {সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং-৯১৪, মুসনাদুল বাজ্জার, হাদীস নং-৪৪৭, সুনানে নাসায়ী, হাদীস নং-৫০৪৯}

এ কারণে মহিলাদের জন্য মাথার চুল কামানো জায়েজ নয়। তবে যদি কোন কারণে অসুস্থ হয়ে পড়ে, তাহলে প্রয়োজনের কারণে চুল কর্তন করা জায়েজ আছে। তবে এক্ষেত্রে যখনি উজর দূরিভূত হয়ে যাবে, তখন থেকে আর কাটা জায়েজ হবে না।

ফাতাওয়া শামীতে এসেছে-

قَطَعَتْ شَعْرَ رَأْسِهَا أَثِمَتْ وَلُعِنَتْ زَادَ فِي الْبَزَّازِيَّةِ وَإِنْ بِإِذْنِ الزَّوْجِ لِأَنَّهُ لَا طَاعَةَ لِمَخْلُوقٍ فِي مَعْصِيَةِ الْخَالِقِ، (رد المحتار، كتاب الحظر والإباحة، فصل البيع-6/407

খুলাসাতুল ফাতাওয়াতে এসেছে-

المرأة اذا حلقت رأسها ان كان لوجع اصابها لا بأس به وان كان لتشبه بالرجل يكره، (خلاصة الفتاوى، الفصل التاسع فى المتفرقات-4/37)

একই হুকুম বালেগ হওয়ার নিকটবর্তী মেয়েদের বেলায়ও প্রযোজ্য। অর্থাৎ তাদের জন্য চুল কাটানো জায়েজ নয়। তবে যদি বালেগ হওয়ার নিকটবর্তী বয়সে উপনিত না হয়, তাহলে এমন শিশুদের সৌন্দর্য বাড়াতে, বা অন্য কোন কারণে সাজতে চুল কাটানোয় কোন সমস্যা নেই। তবে এক্ষেত্রেও কাফের বা ফাসেকদের নির্র্দিষ্ট ষ্টাইল বা ফ্যাশন নকল না করা উচিত।

চুল রং করাঃ

চুলকে রঙ্গীন করাতে কোন সমস্যা নেই। যদি অন্য কোন হারাম কাজ না করা হয়, তাহলে এমনিতে মহিলাদের চুল রঙ্গিন করাতে শরয়ী কোন নিষিদ্ধতা নেই। তবে যদি মাথায় কালার করেন, সেটা কালো রং না দিয়ে অন্য রং দিতে পারেন। মেহেদিও দিতে পারেন, যেটি জায়েজ এবং এটি দিয়ে সালাত আদায় করা জায়েজ।

কালো রঙের বিষয়ে আপত্তি আছে। কালো রঙের সঙ্গে মিশ্রণ করে কলপ করা যেতে পারে। কালো পরিহার করার বিষয়ে রাসুলুল্লাহ (সা.) নির্দেশ দিয়েছেন, ‘কালো বর্জন করে অন্য কোনো রং ব্যবহার করতে পারেন।’

চুল ঝুঁটিকরণঃ

চুল কাটা ছাড়া বিভিন্ন প্রকার ঝুঁটি ও ডিজাইন করাতেও শরয়ী কোন নিষেধাজ্ঞা নেই।

عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ، رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُمَا قَالَ: بِتُّ لَيْلَةً عِنْدَ مَيْمُونَةَ بِنْتِ الحَارِثِ خَالَتِي، وَكَانَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ عِنْدَهَا فِي لَيْلَتِهَا، قَالَ: «فَقَامَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يُصَلِّي مِنَ اللَّيْلِ، فَقُمْتُ عَنْ يَسَارِهِ» قَالَ: «فَأَخَذَ بِذُؤَابَتِي فَجَعَلَنِي عَنْ يَمِينِهِ»

হযরত ইবনে আব্বাস রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, একবার আমি আমার খালা মায়মূনা বিনতে হারিসের নিকট রাত যাপন করছিলাম। ঐ রাতে রাসূল সাঃ ও তাঁর কাছে ছিলেন। ইবনে আব্বাস রাঃ বলেন, রাসূল সাঃ উঠে রাতের সালাত আদায় করতে লাগলেন। আমি তাঁর বাম পাশে গিয়ে দাঁড়ালাম। তখন তিনি আমার চুলে ঝুটি ধরে আমাকে তাঁর ডান পাশে নিয়ে দাঁড় করালেন। {সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫৯১৯, ৫৫৭৫}

তবে এক্ষেত্রে কাফের বা কোন ফাসেক মহিলার ডিজাইন ও ষ্টাইল যেন নকল না করা হয় সেদিকে অবশ্যই লক্ষ্য রাখতে হবে। কারণ ফাসেক ও কাফেরের সাদৃশ্য গ্রহণ জায়েজ নয়।

عَنِ ابْنِ عُمَرَ قَالَ قَالَ رَسُولُ اللَّهِ -صلى الله عليه وسلم- « مَنْ تَشَبَّهَ بِقَوْمٍ فَهُوَ مِنْهُمْ ».

হযরত আব্দুল্লাহ বিন ওমর রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন-যে ব্যক্তি যার সাদৃশ্য গ্রহণ করে সে তাদেরই অন্তর্ভুক্ত হবে (আবু দাউদ শরীফ, হাদিস নং-৪০৩৩, মুসনাদুল বাজ্জার, হাদিস নং-২৯৬৬, মুসনাদে আব্দুর রাজ্জাক, হাদিস নং-২০৯০৮৬)

ফ্যাসিয়াল ও হাত পা মালিশ করাঃ

শরয়ী সীমায় থেকে সৌন্দর্য বর্ধনের লক্ষ্যে মহিলাদের জন্য ফ্যাসিয়াল করা, ক্রিম বা লোশন ব্যবহার করা, হাত পা মালিশ করা জায়েজ আছে। তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে যেন শরয়ী সীমা লঙ্ঘিত না হয়। যেমন মালিশ করতে গিয়ে যে অঙ্গ ধরা স্বামী ছাড়া কারো জন্য জায়েজ নয়, তা স্পর্শ করা ইত্যাদি। যদি এমনটি করা হয়, তাহলে তা হারাম হবে।

ভ্রু চিকন করাঃ

ভ্রু সম্পূর্ণ উপড়ে ফেলা জায়েজ নয়। হারাম। হাদীসে এসেছে-

عَنِ ابْنِ مَسْعُودٍ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُ قَالَ: «لَعَنَ اللَّهُ الوَاشِمَاتِ وَالمُسْتَوْشِمَاتِ، وَالمُتَنَمِّصَاتِ وَالمُتَفَلِّجَاتِ لِلْحُسْنِ، المُغَيِّرَاتِ خَلْقَ اللَّهِ» مَا لِي لاَ أَلْعَنُ مَنْ لَعَنَهُ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ، وَهُوَ فِي كِتَابِ اللَّهِ

হযরত আব্দুল্লাহ বিন মাসউদ রাঃ থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, সৌন্দর্য বৃদ্ধিকল্পে যে নারী উলকী উৎকীর্ণ করে ও করায়, যে নারী ভ্রƒ উপড়ে ফেলে এবং যে নারী দাঁত কেটে সরু করে দাঁরে মাঝখানে ফাঁক বানায়, যে কাজগুলি দ্বারা আল্লাহর সৃষ্টির মাঝে পরিবর্তন সাধিত হয়, এদের উপর আল্লাহ তাআলা অভিশাপ বর্ষণ করুন। আমি কেন তার উপর অভিশাপ বর্ষন করবো না, যাদের উপর আল্লাহর রাসূল অভিশাপ বর্ষণ করেছেন। সেই সাথে তা আল্লাহ তাআলার কিতাবেই বিদ্যমান আছে। {সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫৯৪৩, ৫৫৯৯, মুসনাদুল বাজ্জার, হাদীস নং-১৪৬৭}

তবে হিজড়াদের সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ না হলে ভ্রুকে কেঁচি দিয়ে ছোট করা জায়েজ আছে। যেমন ফাতাওয়া শামীতে এসেছে-

ولا بأس بأخذ الحاجبين وشعر وجهه ما لم يشبه المخنث (رد المحتار على الدر المختارن كتاب الحظر والاباحة، فصل فى النظر والمس-6/373

হাত পা ও চেহারার চুল উপড়ে ফেলাঃ

মহিলাদের শরীরের অতিরিক্ত লোম ও চুল উপড়ে ফেলা জায়েজ আছে। যেমন দাড়ি মোচ, লোম ইত্যাদি।

(قوله والنامصة إلخ) ذكره في الاختيار أيضا وفي المغرب.

النمص: نتف الشعر ومنه المنماص المنقاش اهـ ولعله محمول على ما إذا فعلته لتتزين للأجانب، وإلا فلو كان في وجهها شعر ينفر زوجها عنها بسببه، ففي تحريم إزالته بعد، لأن الزينة للنساء مطلوبة للتحسين، إلا أن يحمل على ما لا ضرورة إليه لما في نتفه بالمنماص من الإيذاء. وفي تبيين المحارم إزالة الشعر من الوجه حرام إلا إذا نبت للمرأة لحية أو شوارب فلا تحرم إزالته بل تستحب المخنث (رد المحتار على الدر المختارن كتاب الحظر والاباحة، فصل فى النظر والمس-6/373)

বধুসাজঃ

ইতোপূর্বের আলোচনা দ্বারাই একথা বুঝে এসে গেছে যে, সাজগোজ করাতে ইসলামী শরীয়তে কোন নিষেধাজ্ঞা নেই। যদি না কোন হারাম উদ্দেশ্য হয় কিংবা কোন হারাম পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়, তাহলে সাজগোজ করাতে কোন সমস্যা নেই। আর স্বামীকে সন্তুষ্ট করতে সাজগোজ করতে শরীয়ত স্ত্রীকে উদভুদ্ধ করে থাকে। তাই স্বামীর জন্য স্ত্রীকে সাজিয়ে দেয়া বা স্ত্রী নিজেই সাজগোজ করাতে কোন সমস্যা নেই। তবে যদি অন্য কোন শরীয়ত বিরোধী এতে অনুপ্রবেশ করানো হয়, তাহলে ভিন্ন কথা।

শেষ কথাঃ

এক বাক্যে যেমন পার্লারকে নাজায়েজ বলা যাবে না, ঠিক তেমনি এক বাক্যে তাকে জায়েজও বলা যাবে না। উপরোক্ত দীর্ঘ আলোচনা দ্বারা বুঝা গেল যে, হারাম কাজ না করলে পার্লার খোলা জায়েজ আছে, আর হারাম কাজ করা হলে জায়েজ নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published.