প্রতিটি ভুলের জন্য কি আলাদা তওবা করতে হয়? পূর্বের পাপ মনে পড়লে কী করব?


প্রশ্ন : কেউ যদি একাদিক পাপে লিপ্ত থাকে। এখন সে ভালো হতে চায়। তাহলে সে তওবা করতে গেলে কি প্রতিটি পাপ বা ভুল আলাদাভাবে উল্লেখ করে তওবা করবে?

উত্তর : প্রতিটি পাপ আলাদা উল্লেখ করে তওবা করতে হবে না। তওবার জন্য পাপ আলাদা উল্লেখ করার দরকার নেই। তওবা করতে হলে প্রথমত, ওই পাপগুলো থেকে পরিপূর্ণ রুপে ফিরে আসতে হবে। পাপ থেকে পরিপূর্ণভাবে ফিরে আসার নামই তওবা। আপনি হয়তো তওবার ব্যাপারটি বুঝতে পারেননি। তওবা হচ্ছে কাজ ও আমলের বিষয়। পাপ কাজ থেকে পরিপূর্ণভাবে ফিরে আসতে হবে। এরপর আপনি আল্লাহর কাছে ইস্তেগফার করবেন। সাধারণভাবেই বলতে পারেন, আল্লাহ আমি অনেক গুনাহ করেছি আমাকে ক্ষমা করে দিন। এর জন্য নিয়মিত আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। আপনি তওবা ইস্তেগফার করতেই থাকবেন। এভাবে আপনি তওবা ও ইস্তেগফার করবেন। আর অবশ্যই আপনাকে সেসব অপরাধ থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। প্রতিটি আলাদা উল্লেখ করতে হবে না। কারণ আল্লাহতালা সবকিছুই জানেন। তাই আলাদা বলার কোনো দরকার নেই।

প্রশ্ন : পূর্বের কিছু পাপের জন্য তওবা করেছি। এখন সেসব মনে পড়লে আবারও কি তওবা করতে হবে, নাকি ইস্তেগফার করতে হবে?

উত্তর : পূর্ববর্তী কোনো পাপের কথা মনে পড়লে বা অনুতপ্ত হলেই এটি একটি তওবা। এক হাদিস অনুযায়ী, তওবা হলো মূলত অন্তরে সত্যিকার অর্থে অনুতপ্ত হওয়া। কোনো ব্যক্তি অন্তরে যদি আগের পাপের কথা ভেবে ব্যথিত হন, তাহলে তিনি বেশি বেশি ইস্তেগফার করবেন। এ সময় মন নরম থাকে। এ অবস্থায় আল্লাহর কাছে ইস্তেগফার করবেন, ক্ষমা চাইবেন এবং দোয়া করবেন। এ সময়ের ইস্তেগফার কবুল হয়। যদি এসব করলে আপনার তওবা কবুল হবে। এ জন্য অনুশোচনা এলেই আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইবেন। বেশি বেশি ইস্তেগফার করবেন।


Leave a Reply

Your email address will not be published.